লালমনিরহাটের ভেলাগুড়িতে প্রায় ২ হাজার সোলারহোম সিষ্টেম বিতরণ

বাংলদেশে বিদ্যুৎ বিহীন প্রত্যন্ত এবং চর এলাকায় সৌর শক্তির উন্নয়ন’’ শীর্ষক সোলারহোম সিষ্টেম বিতরণ করা হয়েছে। লালমনিরহাটের উপজেলার ভেলাগুড়ি ইউনিয়নে প্রায় ২ হাজার সোলারহোম সিষ্টেম বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন হাতিবান্ধা-পাটগ্রামের সাংসদ ও বাংলাদেশ আওয়ামীলীগ লালমনিরহাট জেলা শাখার সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মোতাহার হোসেন এমপি।

সোলার বিতরণ অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি  বলেন, আমার নির্বাচনী এলাকা লালমনিরহাট-১ আসন (হাতিবান্ধা ও পাটগ্রাম) বেশির ভাগ এলাকা নদী ভাঙ্গন, চর এলাকা এবং বিদ্যুৎ বিহীন এলাকা হওয়া সত্তে¡ মাত্র ১টি ইউনিয়ন বর্ণিত প্রকল্পের আওতায় রয়েছে। যা প্রয়োজনের তুলনা অত্যন্ত অপ্রতুল। আমার নির্বাচনী এলাকার মানুষ বেশিরভাগ প্রান্তিক জনগণ এবং বিদ্যুৎ সুবিধা বঞ্চিত। এসব মানুষের জীবনমান উন্নয়নের জন্য এ প্রকল্পের আওতায় পাটগ্রাম এবং হাতিবান্ধা উপজেলার সকল ইউনিয়ন সমূহে কার্যক্রম গ্রহণ করার মাধ্যমে এসকল এলাকার জনগণ সুবিধা পাবে বলে আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি। গতকাল রোববার বিকালে পল্লী দারিদ্র্য বিমোচন ফাউন্ডেশন (পিডিবিএফ) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন প্রকল্পে এসব কথা বলেন তিনি । এসময় বিশেষ অতিথির বক্তব্যে প্রকল্প পরিচালক ড. মোঃ মনারুল ইসলাম বলেন, বাংলাদেশের জিডিপি ৭-৮% করার জন্য বিদ্যুৎ সরবরাহ উন্নয়ন এবং সম্প্রসারণ করতে সরকার ইতোমধ্যে পাওয়ার মাষ্টার প্লান প্রণয়ন করেছে। বিদ্যুৎ চাহিদা মেটানোর জন্য ২০২১ সালের মধ্যে মোট বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা ২৪,০০০ মেগাওয়াট এবং ২০৩০ সালের মধ্যে ৩৯,০০০ মেগাওয়াটে উন্নীত হবে। নবায়নযোগ্য জ্বালানী নীতিমালায় ২০২০ সালের মধ্যে মোট উৎপাদিত বিদ্যুতের ১০% অর্থাৎ ২,০০০ মেগাওয়াট নবায়নযোগ্য জ্বালানী উৎপাদন করতে হবে। এ লক্ষ্য অর্জনের জন্য বাংলাদেশের প্রত্যন্ত বিদ্যুৎবিহীন এবং চর এলাকায় সৌর শক্তি উন্নয়ন শীর্ষক প্রকল্পটি একটি সহায়ক হিসেবে কাজ করছে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্বাচর্নী অঙ্গীকার প্রতিটি গ্রাম হবে প্রতিটি শহর। এ অঙ্গিকার বাস্তবায়নে বিশেষ ভূমিকা পালন করতে সক্ষম হবে। এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ নৌবাহীনির  প্রতিনিধি এইচ এল টি গোলাম আজম, হাতিবান্ধা উপজেলা দারিদ্র বিমোচন কর্মকর্তা মজিবুর রহমান, উপ-পরিচালক আব্দুর রাজ্জাক,আবু ইউছুফ মো: মামুনসহ পিডিবিএফ এর  কর্মকর্তাবৃন্দ। চর এলাকার স্থানীয়রা জানান, বিদ্যুৎ এর বিকল্প হিসেবে পিডিবিএফ এর আওতায় ২৪০০০/- টাকার সোলার মাত্র ৪৯২০/- নিতে পেরে আমরা আনন্দিত। প্রকল্পটি ৩৩০৮.৪২ (জিওবি: ২৬৭৩.২৮; অন্যান্য: ৬৩৫.১৪) লক্ষ টাকা ব্যয়ে মার্চ, ২০১৮ থেকে জুন, ২০২০ মেয়াদকালে বাস্তবায়নাধীন রয়েছে। উল্লেখ্য, বাংলাদেশ নৌাবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত ডকইয়ার এন্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিঃ এর মাধ্যমে এ প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হচ্ছে। ###-২৭-১০-২০১৯ খ্রি: আব্দুর রহমান রাসেল, রংপুর অফিস: মোবা: ০১৮৮০০২০৬১০   

Leave a Reply

Your email address will not be published.